পারো এবং টাইগার্স নেস্ট পারো পারো তে উঠেছিলাম হোটেল পেলজরলিং এ। হোটেলে ব্যাগ টেগ রেখে চলে গেলাম সিম কিনতে আর একটু শহর টা একটু ঘুরে দেখতে। শহর বললে ভুল হবে, ছোট্ট একটা জায়গা, এমাথা থেকে ওমাথা হেটে যেতে ১০ মিনিটও লাগেনা। এর মাঝে কিছু দোকানপাট, বাড়িঘর আর কিছু হোটেল। এখানে আসার সময় কয়েক জায়গায় বাড়িঘরে […]

Read More →

শুরুর কথা এই সেকশনে যাত্রা পূর্ববর্তী প্রস্তুতি নিয়ে ব্যাপক বকবক করা হয়েছে, যাদের এসব পড়ার ধৈর্য্য নাই তারা চোখ বন্ধ করে পরবর্তী সেকশনে চলে যান ছোট বেলায় স্কুলে পড়ার সময় হিমালয় পর্বতমালার নাম শুনে নাই, এমন বোধহয় একজনকেও খুঁজে পাওয়া যাবেনা। একটা সময় হিমালয় আর এভারেস্টকে একই জিনিস ভাবতাম,’পর্বতমালা’ র শব্দের অর্থই বুঝতাম না। আমার […]

Read More →

২য়দিনঃ (পোখারা থেকে ঘান্দ্রুক) কাঠমান্ডু সকাল ৮.৩০ এ ফ্লাইট, তাই ৬.৩০ টার মধ্যে হোটেলের পাওনা বুঝিয়ে দিয়ে বের হয়ে গেলাম। শামীম ভাই এর কথা মত এক ট্যাক্সি কে ডেকে জিজ্ঞাস করলাম মিটারে যাবে কিনা। যাবেনা জানি, এরাও আমাদের সিএনজি অলা দের মত (এখন অবশ্য সিএনজি মিটারে যায়, দেখা যাক কতদিন চলে), মিটারে যাবেনা, বলল ৭০০। […]

Read More →

৩য় দিন – ঘান্দ্রুক ( ২০২০ মিঃ ) থেকে চমরং ( ২১৭০ মিঃ ) ঘান্দ্রুক শুরুতে অনেকে দেখে ভাবতে পারে যে আজকে অনেক আরামের দিন, ২০২০ থেকে মাত্র ২১৭০ মিঃ উপরে উঠতে হবে। আমিও তাই ভেবেছিলাম। কিন্তু যখন চন্দ্র দা বললেন যে এই রাস্তা যেতে ৭ ঘণ্টা লাগবে, সব আনন্দ উড়ে গেল। সবচেয়ে কষ্টের ব্যাপার […]

Read More →

৪র্থ দিন – চমরং ( ২১৭০ মিঃ ) থেকে হিমালয়া হোটেল ( ২৯০০ মিঃ ) চমরং চমরং থেকে আমরা ৭.৩০ এর মধ্যে বের হয়ে গেলাম। অন্নপূর্ণা ট্র্যাকের সবচেয়ে বড় গ্রাম এই চমরং। প্রচুর পরিমাণ লজ আছে এখানে। বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে ট্র্যাক শুরু করা সবাই এসে চমরং এ মিলিত হয়, এখান থেকে অন্নপূর্ণার উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু […]

Read More →

হিমালয়া হোটেল সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখি আমার গায়ে জ্বর জ্বর ভাব নেই, শরীরও ঝর ঝরে লাগছে। আত্মবিশ্বাস আবার লাফ দিয়ে তুঙ্গে উঠে গেল। তবে তাই বলে পায়ের ব্যথা যে নেই তা না। ডাইনিং এ দেখলাম জিম সহ আরও বেশ কয়েকটি দেশের সবাই একসাথে নাস্তা করছে। সবাই অলরেডি তৈরি ট্রেক শুরুর জন্য। আমরা তাড়াতাড়ি মুখে […]

Read More →

অন্নপূর্ণা বেস ক্যাম্প( ৪১৩০ মিঃ ) ‘ভয়ঙ্কর সুন্দর’ শব্দটা আমরা ব্যাবহার করি যখন কোনও জিনিসের সৌন্দর্য আমাদের কল্পনার মাত্রাকেও ছাড়িয়ে যায়। এইদিন সকালে বাহিরের ভিউকে বর্ণনা করার জন্য এর চেয়ে ভালো কোনও শব্দ আমার জানা নাই। দূরে মেঘের ফাঁকে অন্নপূর্ণা ১ এর পিক এর একটা অংশ দেখা যাচ্ছে, তার উপর জমে থাকা বরফে রোদ পড়ে […]

Read More →

দোভান থেকে ঝিনু ডাণ্ডা চমরং ছোটবেলা স্কুলের বাংলা বইতে সৈয়দ মুজতবা আলী’র “গ্র্যাবোভোবাসীদের রস-রসিকতা” নামে একটা গল্পে প্রথম শুনি ‘উষ্ণ প্রসবন” শব্দটা। সেখানে লেখা ছিল গ্র্যাবোভোবাসীরা ঠাণ্ডায় উষ্ণ প্রসবণের পানিতে গোসল করত। আমরা সবাই ভাবতাম এইটার মানে বুঝি ‘গরম মূত্র’ । স্কুলের স্যার রাও ব্যাপারটা ঠিক মতো বুঝায় দেয় নাই। বহুদিন পর্যন্ত আমার এই ধারণা […]

Read More →

পোখারা কিউমি ও সিউই আজ আমাদের হিমালয়ে শেষ দিন, ৩ ঘণ্টা হেঁটে আমাদের যেতে হবে কিউমি, সেখান থেকে আরও ২ ঘণ্টা দূরে সিউই। সিউই থেকে জীপ আর লোকাল বাস দুইটাই পাওয়া যায় পোখারা যাওয়ার জন্য। জীপের ভারা অত্যধিক বেশি, কিন্তু লোকাল বাসের কোনও টাইমটেবিল নাই। আমাদের হাঁতে টাকা শেষ হতে চলায় ঠিক করলাম বাস যতক্ষণ […]

Read More →